রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ১১:৩৩ পূর্বাহ্ন

পীরগঞ্জে মুরগির খামারের দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী ইউএনও অফিস ঘেরাও

পীরগঞ্জে মুরগির খামারের দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী ইউএনও অফিস ঘেরাও

আবু তারেক বাঁধন ,স্টাফ ক‌রেসপ‌ন্ডেন্ট :

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জের চাপোর ও মছলন্দপুর গ্রামে মুরগির খামারের বিষ্ঠার দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। অভিযোগ উঠেছে, নীতিমালা উপেক্ষা করে গ্রামের ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় খামারটি স্থাপন করা হয়েছে। এ বিষয়ে গত ১২জুন মঙ্গলবার পীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত গণ অভিযোগ দিয়েছে গ্রামবাসী।


অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, কয়েক বছর আগে চাপোর মছলেন্দপুর গ্রামে উপজেলার লেয়ার ও ব্রয়লার ফিড মিল ব্যবসায়ী রাজা ও বাদশা দুই ভাই আবাসিক এলাকায় ছোট পরিসরে ব্রয়লার মুরগির খামার স্থাপন করলে বর্তমানে তাদের খামারে প্রায় আড়াই হাজার মুরগি রয়েছে। বর্তমানে তিনি বড় পরিসরে আরও একটি মুরগির খামার করার জন্য ঘর তৈরি করছেন। ইতিমধ্যেই একটি খামারের মুরগির বিষ্ঠার কারণে এলাকার পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। বিষ্ঠার দুর্গন্ধে খামারের আশেপাশের মানুষের বসবাস করা দায় হয়ে পড়েছে। সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী,একটি মুরগির খামার স্থাপনের জন্য পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি ও প্রাণী সম্পদ কার্যালয় থেকে রেজিস্ট্রেশনভুক্ত হতে হবে। ঘনবসতিপূর্ণ ও আবাসিক এলাকায় এবং সাধারণ মানুষের কষ্ট হয় এমন স্থানে খামার স্থাপন করা যাবে না। তবে সরকারি নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে রাজা ও বাদশা নামে দুই ভাই গায়ের জোরে আবাসিক এলাকায় মুরগির খামার স্থাপন করলে ইউএনও’কাছে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী প্রায় ৫শ জন মানুষ। কিন্তু পীরগঞ্জ উপজেলা ইউএনও এ ডব্লিউ এম রায়হান শাহ কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় তারা ইউএনও অফিস আজ বুধবার ঘেরাও করে। এ ব্যাপারে মছলন্দপুর গ্রামের বাসিন্দা আব্দুর রহমান ক্ষোপ নিয়ে বলেন,আমার বাড়ির পাশেই খামার মুরগীর বিষ্ঠা থেকে যে পরিমাণ দুর্গন্ধ ছড়ায় আশেপাশে বসবাস করা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। পীরগঞ্জ সরকারি কলেজের ছাত্র উজ্জল আহম্মেদ বলেন, ঘনবসতীপূর্ণ এলাকার বর্তমান খামারের মুরগির বিষ্ঠার কারণে যে হারে এলাকার পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। বিষ্ঠার দুর্গন্ধে খামারের চারদিকে মানুষের বসবাস করা দায় হয়ে পড়েছে সেই সাথে আবার তিনি আরও একটি খামার তৈরির কাজ করছেন। আর যেন নতুন করে কোন খামার তৈরি করা না হয় সে জন্য এলাকাবাসী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বরাবর অভিযোগ দিয়েছে গ্রামবাসী।

এ বিষয়ে একাধিক বার মুঠোফোনে খামার মালিকের সাথে যোগাযোগ করা হলেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এ বিষয়ে ইউএনও এ ডাব্লিউ এম রায়হান শাহ বলেন,গ্রামে গিয়ে সরেজমিনে তদন্ত করে বিষয়টির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপি পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। উত্তরের কন্ঠ[ডট]কম
themebazaruttorerka234
error: Content is protected !!